কেমন আছ বাংলাদেশ? ভালো নেই তোমার প্রবাসী সন্তানেরা!

প্রকাশিত: 2:16 PM, March 28, 2020

বিশ্বের প্রতিটি মানুষ যখন করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক উৎকণ্ঠায় সময় পার করছে তখন প্রিয় ভূমি জন্ম ভূমির কথা কি ভুলে থাকতে পারে প্রবাসী সন্তানেরা? তাইতো দেশের সুখ দুঃখের কথা জানার প্রবল ইচ্ছা ও আগ্রহ নিয়ে বসে থাকে মা ও মাটি হারা লক্ষ কোটি প্রবাসীরা।

কোনটা দিয়ে শুরু করব আর কোনটা দিয়ে শেষ করব ভেবে পাচ্ছি না লকডাউন এর কিছু খণ্ড চিত্র নিয়েই শুরু করি প্রথমে দেখলাম গরিব অসহায় রিক্সা চালক ভেন চালক পথচারীদের কোন কথা না শুনেই লাঠিপেটা করা হল এটা কেমন দেশরে ভাই একজন নিরীহ মানুষ জানতে পারল না তার অপরাধ কি? যারা দিন আনে দিন খায় তাদের একমাত্র সম্বল হচ্ছে পরিশ্রম করে খাবারের ব্যবস্থা করা তারাতো শিক্ষিত মানুষের মত জানেনা কখন বের হতে হবে কি ভাবে বের হতে হবে যাদের ঘরে খাবার নাই তারা মাস্ক পাবে কোথা থেকে? রাষ্ট্র যদি সাধারণ গরিব মানুষের ভাত কাপড় বাসস্থান এর ব্যবস্থা করতে না পারে তাহলে কি এভাবে নির্যাতন করা সাজে।

 

আরেকটি নিউজ দেখলাম একজন মহিলা কর্মকর্তা বৃদ্ধ ভেন চালকদের কান ধরে উঠবস করাচ্ছেন আর এই নির্লজ্জ কর্মকাণ্ডের ছবি তুলছেন কোথায় আজ বিবেক! কোথায় আজ মানবতা! একটি বারের জন্য ও চিন্তা করলেন না উনি তো আমার বাবার বয়সী চাচার বয়সী! আজ উনাদের জায়গায় যদি ভদ্র মহিলার বাবা বা চাচাকে এভাবে জন সম্মুখে কান ধরে উঠবস করানো হত তাহলে কেমন লাগত নিশ্চয় ভালো লাগত না গরিবের সাথে আর কত নিষ্ঠুরতা করবে আমার রাষ্ট্র নামের অত্যাচারী শাষক।

গুজব দিয়ে শুরু হল রাত প্রথমে শুনলাম একসাথে আযান হচ্ছে কেউ জানে না কেন হচ্ছে তা ও আবার অসময়ে একটু পরে শুনলাম মিছিল ও হচ্ছে এর একটু পর আবার শুনলাম একটি বাচ্চা নাকি জন্ম হয়ে বলেছে লাল চা খেলে করোনা ভাইরাস দূর হবে এই সংবাদ দিয়ে মারা গেছে। আজব দেশের গজব কাহিনী এমনিতেই দেশ এক কঠিন সময় পার করছে তার উপর এ ভাবে মানুষকে ভয়ভীতি দিয়ে আতংকিত করে হয়রানি করার কোন মানে হয়? আরো অবাক হলাম এই সমস্ত কর্মকাণ্ডের পক্ষে সাফাই গাইতে দেখে তা ও আবার সহীহ হাদিসের নামে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করে হে আমার প্রিয় ভায়েরা আবেগ দিয়ে নয় ধর্মীয় বিষয় কোরআন ও হাদিসের আলোকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

 

ইংল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন প্রিন্স চার্লস
স্বাস্থ্যমন্ত্রী সহ অনেক মানুষ আজ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত প্রতিদিন মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে এর মধ্যে বাংলাদেশী ভাই বোনদের খবর প্রতি নিয়ত পাচ্ছি প্রথমে শুনতাম বয়স্ক লোক মারা যান এখন দেখছি না শুধু বয়স্ক নয় সব বয়সের মানুষই মারা যাচ্ছেন।

 

গতকাল শুনলাম মা বাবার একমাত্র মেয়ে ২৫ বৎসর বয়সী একজন বোন মারা গেছেন কিন্তু আফসোস এর বিষয় হচ্ছে দুই সপ্তাহের জন্য পরিবারকে রাখা হয়েছে ঘর বন্ধি করে একবার ভাবুন তো মা বাবা ভাই বোন আত্মীয় স্বজন এর কি অবস্থা যাচ্ছে আদরের সন্তানকে ধরা যাবে না ছোঁয়া যাবে না শেষ বিদায়ে প্রান খুলে দেখা যাবে না আমার ভাবতেই খুব কষ্ট লাগছে তাদের কান্নার শব্দ যে আমি পরিষ্কার শুনতে পাচ্ছি আপনারা কি শুনতে পাচ্ছেন না, যদি শুনতে পান তাহলে মালিককে বলি এমন কঠিন পরীক্ষায় আমাদেরকে ফেলনা আমরা এই পরীক্ষায় সফল হতে পারবনা আমাদের উপর দয়া কর রহম কর করম কর।

কুকুরে দেখিলে মোরে শরম লাগে তার, কোন গোনাহ নাহী তার আমি গোনাহগার।

 

শেখ নূরে আলম হামিদী

তারিখ ২৮/৩/২০২০

ইংল্যান্ডের ওয়ালছল শহর থেকে।